1. Home
  2. Bangla
  3. উত্তরপ্রদেশে, অতিমারীর মধ্যে একটি ছোটো পারিবারিক বিসনেস একটি গ্রামের জন্য একটি লাইফলাইন হয়ে উঠেছিল

উত্তরপ্রদেশে, অতিমারীর মধ্যে একটি ছোটো পারিবারিক বিসনেস একটি গ্রামের জন্য একটি লাইফলাইন হয়ে উঠেছিল

0
Read this article in English | हिन्दी | தமிழ் | ಕನ್ನಡ | ગુજરાતી | मराठी

যখন লক্ষ্ণৌ-এর কাছে একটি দূরবর্তী গ্রামে 35 বছর আগে মেঘদূত হার্বাল প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, তখন এর লক্ষ্য ছিল কাছাকাছি বসবাসকারীদের জন্য কাজের সুযোগ তৈরী করা। 2020-এর শুরুর দিকে, যখন একটি বিশ্বব্যাপী অতিমারী অস্তিত্বের মুখ্য উদ্দেশ্য, চিরাচরিত পরিবারের মালিকানাধীন বিসনেসকে ভীতসন্ত্রস্ত করে দিয়েছিল, এবং একটি ফ্লিপকার্ট সমর্থ পার্টনার, সংকটের সাথে মানিয়ে নিয়েছিল এবং কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে এগিয়ে যাওয়ার জন্য ই-কমার্সকে উদ্দেশ্য সাধনের উপায় হিসেবে নির্ধারণ করেছিল। উত্তর প্রদেশ সরকারের সাথে স্বাক্ষরিত একটি মউ-এর সহায়তার অধীনে ফ্লিপকার্ট সমর্থ কর্মসূচী দ্বারা সাহায্যপ্রাপ্ত, বিপুল শুক্লার পারিবারিক বিসনেস এই কাজে নিমজ্জিত হতে এবং সাফল্য উপলব্ধ করতে অনুরূপ এন্টারপ্রাইসের জন্য পথ প্রশস্ত করেছে। তাদের অভূতপূর্ব গল্প পড়ুন।

উত্তরপ্রদেশে, অতিমারীর মধ্যে একটি ছোটো পারিবারিক বিসনেস একটি গ্রামের জন্য একটি লাইফলাইন হয়ে উঠেছিল
0

In 1985, বিপুল শুক্লার পিতামহ তার সমস্ত সঞ্চয় ব্যবহার করেছিলেন ছোটো বিসনেস ম্যানুফ্যাকচারিং আয়ুর্বেদিক প্রোডাক্টগুলি তৈরী করা শুরু করতে তখনকার একটি দূরবর্তী গ্রামে যা ছিল উত্তর প্রদেশের লক্ষ্ণৌ শহরের কাছে। সেই সময় মেঘদূত হার্বাল ছিল একটি ভদ্রস্থ সেট আপ- এর অন্তর্ভুক্ত ছিল একটি অফিস এবং একটি প্রোডাকশন প্ল্যান্ট যার অর্থ ছিল কাছাকাছি বসবাসকারী মানুষদের জীবিকার ব্যবস্থা করা। দ্রুত, এটি রেজিস্টার করা হয়েছিল ইউপি খাদি এবং গ্রামীণ শিল্প বোর্ড-এর সাথে (UPKVIB).

কোম্পানী এবং এর অসংখ্য ভেষজ উপাদানগুলি গ্রামের অংশ ছিল এবং তিন প্রজন্ম ধরে এখন পরিবারটি চলেছে, মুখ্য ভুমিকা পিতামহ থেকে বাবা এবং এখন বিপুল এবং তার ভাইয়ের মধ্যে চলে এসেছে, যারা এখন রোজকার বিসনেস চালায়।

যাকে সে ই-কমার্স-এর বিষয়ে অসংখ্য বাধা বলে থাকে তা থাকা সত্ত্বেও, বিপুলই ঘটনাচক্রে তার চিরাচরিত পারিবারিক বিসনেসকে হাতে তুলে নেয় অনলাইনে দেবে বলে, যা ভেষজ এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক প্রোডাক্টগুলি এবং আয়ুর্বেদিক ওষুধগুলি প্রস্তুত করে। মেঘদূত হার্বাল সবেমাত্র একবছর আগে একটি ফ্লিপকার্ট সমর্থ পার্টনার হয়েছিল।

ফ্লিপকার্ট এর সমর্থ কর্মসূচী শুরু করেছিল 2019-এর জুলাই-তে ই-কমার্সে ভারতের কারিগর, তাঁতি এবং হস্তশিল্পের উৎপাদকদের নিয়ে আসার জন্য, টার্গেটযুক্ত সুবিধাগুলি সহ তাদের প্রবেশকে সহজ করার জন্য যাতে একটি অনলাইন বিসনেস সেট আপ করা এবং অপারেটিং করার খরচ কমানো যায়। তারপর থেকে ফ্লিপকার্ট সমর্থ, নামী এনজিও, সরকারী সংস্থাসমূহ এবং জীবিকা নির্বাহ মিশনগুলির সাথে কাছ থেকে কাজ করে চলেছে সেই ধরনের গোষ্ঠীগুলিকে চিহ্নিত এবং আলিঙ্গণ করতে যাদের অন্তর্ভুক্ত গ্রামীণ উদ্যোক্তা, মহিলা চালিত এন্টারপ্রাইসগুলি, অন্যভাবে সক্ষম উদ্যোক্তারা, কারিগর এবং তাঁতিরা।.

গ্রামীণ এবং দেশের মধ্যে কম পরিষেবাপ্রাপ্ত সামাজিক এলাকার মধ্যে সক্ষমতা তৈরী করায় একটি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করার মাধ্যমে, ফ্লিপকার্ট সমর্থ আদ সারা ভারতে 500,000-এর বেশি কারিগর, তাঁতি এবং ক্ষুদ্র-এন্টারপ্রাইজগুলির জীবিকা নির্বাহে সহায়তা প্রদান করছে।

On October 2, 2019, the Flipkart Group একটি মউ স্বাক্ষর করেছে উত্তর প্রদেশ খাদি & গ্রামীণ শিল্প বোর্ডের সাথে উত্তর প্রদেশের মুখ্য মন্ত্রীর উপস্থিতিতে, যাকে সেই বোর্ডের অধীনে রেজিস্টার করা রাজ্যের তাঁতি এবং গ্রামীণ শিল্পগুলিকে সক্ষম করা যায়।

অনলাইনের মতো জায়গায় একজন স্ব-দাবীকারী অপেশাদার বিপুল বলে “আমি স্বীকার করবো যে আমাদের অনলাইন অভিযান শুরু করতে আমরা দেরী করেছিলাম,” সে আরও বলে চলে, “সোজাসুজি বলতে গেলে, আমরা পেতে পারি এমন সমস্ত সহায়তার প্রয়োজন ছিল আমাদের। আমরা শুধুমাত্র প্রাথমিক বিষয়গুলি শিখছি।”

একটি অতিমারীর মধ্যে টিকে থাকা

বিপুল বলে চললো জানুয়ারী 2020-এর শেষের দিকে কোনো একটা সময়, তারা শুনতে শুরু করলো করোনাভাইরাস অতিমারীর চরমতার বিষয়ে। বিসনেস এবং গ্রাহক উভয়ের জন্য কঠিন সময় আসতে চলেছে সে বিষয়ে অনুভব করে, টিম দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয় এমন একটি প্রোডাক্ট চালু করার যার বিষয়ে এখনও পর্যন্ত তারা এর আগে কখনও পরিকল্পনা করেনি।

“ফেব্রুয়ারীর শেষের দিকে একটি প্রোডাক্ট হিসেবে আমরা স্যানিটাইজারকে যুক্ত করেছিলাম। সে মনে করে বললো সেই সময় আমরা এখান ওখান থেকে কিছু প্রতিক্রিয়া পাচ্ছিলাম কিন্তু এটির জন্য চাহিদার বিস্ফোরণ ঘটেছিল মার্চের শুরু দিকে অনলাইনে, সে আরও বললো, “স্যানিটাইজারের মার্কেটে একটি শূণ্যস্থান ছিল, যাকে আমরা ধরতে পেরেছিলাম।”

“মার্চের একটা সময়, এমন হয়েছিল যে সারা মাসে আমাদের যা বিক্রী আগে হতো সেটা তখন একদিনে হতো, ,” সে বললো, এটি স্বীকার করে নেওয়া যায় যে কয়েকটি সক্রিয় বিসনেস এবং ই-কমার্স একটি বৃহৎ কাস্টমার বেসকে পরিষেবা দেওয়ার জন্য অপরচুনিটি খুলে দিয়েছিল, এর পরিবর্তে তাদের ব্র্যান্ড পরিচিতি লাভ করেছিল।

সে যেকোনো ধরনেরই বিসনেস হোক না কেন, সেলস হল সর্বোচ্চ প্রাধান্যের বিষয়, সে কথা মাথায় রেখে, মেঘদূত হার্বালের লক্ষ্য হল কাছাকাছি থাকা ব্যক্তিদের জন্য কাজের সুযোগ তৈরী করা। ফ্যাক্টরী ওয়ার্কফোর্সের মূল অংশটি 10-কিমি ব্যাসের মধ্যে বসবাস করে। প্রতিবেশী এলাকা থেকে এই প্রোডাকশন প্ল্যান্টটি 300 জন মানুষকে নিযুক্ত করেছে, যার মধ্যে 40% হল মহিলা, যারা মূলতঃ প্যাকেজিং বিভাগে নিযুক্ত রয়েছেন। এমএসসি বা অন্যান্য পোস্টগ্র্যাজুয়েড ডিগ্রীধারী ব্যক্তিরা ল্যাব বা প্রোডাকশনে কাজ করেন।

বিপুল ব্যাখ্যা করে বলে “আমাদের প্রোডাক্টগুলি হ্যান্ডমেড এবং হ্যান্ড-প্যাকেজড উভয় ধরনেরই,”।

যখন প্রথম লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছিল, তখন কর্মচারীরা প্রোডাকশন প্ল্যান্টে আসতে পারছিলেন না। “এটা আমাদের জন্য উদ্বেগের বিষয় ছিল। কিন্তু আমরা স্থানীয় কর্তৃপক্ষদের সাথে যোগাযোগ করতে পেরেছিলাম এবং তাদের জন্য আবশ্যিক পাসগুলি যোগাযোগ করতে পেরেছিলাম। বিপুল জোর দিয়ে বললো, যখন আমাদের কর্মচারীরে কাজে ফিরে এসেছিল তখন তাদের জন্য আমরা কঠোরভাবে সুরক্ষামূলক বিধিনিষেধগুলিও বজায় রাখার বিষয়টি সুনিশ্চিত করেছিলাম।

অতিমারীর মধ্যে নিও নরমালকে মেনে নেওয়ার সাথে সাথে, কাজের জায়গায় আসার আগে সমস্ত কর্মচারীদের থার্মাল স্ক্যান করা হয় এবং প্রতি দু ঘন্টা অন্তর তাদের হাতগুলি স্যানিটাইজ করা এবং হাত ধোওয়া এখন বাধ্যতামূলক হয়ে গেছে। তিনি জোর দিলেন “গ্রাহকরা এটি ভেবে নিশ্চিন্তে বসে থাকতে পারেন যে আমাদের সমস্ত প্রোডাক্টগুলি 100% নিরাপদ,”।

লকডাউনের সময় সীমিত চলাফেরার কারনে, সমস্ত মেঘদূত হার্বালের প্রোডাক্টগুলি লক্ষ্ণৌ প্ল্যান্টে প্যাকেজড হতো এবং সেখান থেকেই সারা ভারতে গ্রাহকদের কাছে পাঠানো হতো। বিপুল আরও বলে “ই-কমার্সের প্রভাব দেখে আমাদের সাথে কাজ করা প্রত্যেকেই খুশী ছিল,”।

একটি চিরাচরিত পারিবারিক বিসনেসকে নিয়ে নতুন করে চিন্তাভাবনা করা

তার ভেষজ প্রোডাক্টগুলিক জনপ্রিয়তা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বিপুল যোগ করে যে ভারতীয় গৃহস্থালীগুলিতে এটি সেই বহু বছরের পুরোনো প্রবৃত্তি যে ঠান্ডা লাগা এবং চুল পড়ার মতো সাধারণ সমস্যাগুলির মোকাবিলা করতে তারা প্রাকৃতিক এবং চিরাচরিত রেমিডিতেই ফিরে যান।

“এই চিরাচরিত বিশ্বাসের কারনেই গ্রাহকরা আমাদের প্রোডাক্টগুলিতে ফিরে আসেন। এবং তারা যখন ফলাফলগুলি দেখেন তখন বিশ্বাস প্রতিষ্ঠিত হয়, ” তিনি লক্ষ্য করেছেন, এর সাথে যোগ করলেন যে ই-কমার্স তাকে প্রাকৃতিক প্রোডাক্টের মার্কেটের একটি নতুন বিভাগে পৌঁছাতে সাহায্য করেছে।

তিনি বলে চলেন “এর আগে, অফলাইনে আমাদের প্রোডাক্টগুলি অন্যান্যদের মধ্যে মূলতঃ উত্তর প্রদেশ এবং মধ্য প্রদেশের হিন্দী-ভাষী বলয়ে বিক্রী হতো। পারিবারিক বিসনেস অনলাইনে চলে যাওয়ার পর, দেখা গিয়েছিল যে মেঘদূত হার্বালে কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র এবং এমনকি কাশ্মীর থেকেও গ্রাহকদের কাছ থেকে অর্ডার এসেই যাচ্ছিল। তিনি আনন্দের সাথে বলে উঠলেন “এটা ভাবতে সত্যিই ভালো লাগছিল!” । “আমরা এখন সারা ভারত থেকে আমাদের প্রোডাক্টগুলির বিষয়ে ইমেল পাই।”

আইআইটি (বিএইচইউ) থেকে আসা একজন গ্র্যাজুয়েট, বিপুলের তাদের পারিবারিক বিসনেসের জন্য বড় বড় পরিকল্পনা রয়েছে, যা তার ডিগ্রী পাওয়ার পরই তার মাথায় ফিরে আসে। “শুধুমাত্র যে কারনে আমি আইআইটিতে গিয়েছিলাম তা হল একটি ভালো মানের শিক্ষা পাওয়া। একটি 9-5টা পর্যন্ত চাকুরী কখনই আমার জন্য ছিল না, ” সে বলে, দেশের অন্যতম প্রিমিয়ার ইনস্টিটিউটে প্রবেশের কীর্তিটি দূরে সরিয়ে রেখে সে বাড়ি ফেরার দিকে মন দেয়, যেখানে তার মন পড়ে রয়েছে।

ক্লায়েন্টের বর্ধিত সংখ্যা এবং ই-কমার্সের বাড়তে থাকা উদ্দীপনার সাথে সাথে, তিনি আত্মবিশ্বাসী যে আগামী বছরগুলিতে মেঘদূত হার্বাল আরও ভালো কিছু করবে। “এর আগে, মূলতঃ 40 বা তার বেশি বয়সী মানুষেরাই আমাদের প্রোডাক্টগুলির ধরনের প্রতি আকর্ষিত হতেন। কিন্তু এখন, প্রাকৃতিক প্রোডাক্টগুলির প্রতি চাহিদা বাড়ার কারনে 20 বছর বয়সী তরুণ/তরুনীরাও এটি কেনেন। এটা একটা ভালো লক্ষণ — গ্রহণযোগ্যর একটি চিহ্ন।”

লকডাউন সহজ হয়ে যাওয়ার পর, নিয়মিত ব্যবসায় ফিরে আসা চ্যালেঞ্জিং হয়ে পড়ে, কিন্তু বিপুল এর জন্য ফ্লিপকার্টে থাকা তার পার্টনারদের কৃতিত্ব দেয় কারন তারা তাদের দ্রুত সমাধান এবং যৌক্তিক সহায়তা নিয়ে চলে এসেছিল।

তিনি বলেন “প্রতিটি সম্ভাব্য পদ্ধতিতে ফ্লিপকার্ট সহায়তা করেছিল। “কোই গিলা শিকওয়া নেহী হ্যায়। যো হোগা আচ্ছা হোগা।

উত্তর প্রদেশ সরকারের সহায়তায়, ফ্লিপকার্টের সমর্থ কর্মসূচীর অংশ ছিল বিপুলের মতো ছোটো ব্যবসায়ীদের ক্ষমতায়ন ঘটানো সারা ভারতের মার্কেটগুলিতে পৌঁছানোর জন্য তাদের প্লাটফর্ম শক্তি ও সহায়তা দ্বারা সক্ষম করা।

“আমি আনন্দিত যে ইউপিকেবিআইবি এবং ফ্লিপকার্টের মধ্যে সমঝোতা চুক্তি উত্তর প্রদেশের খাদি উদ্যোক্তাদের বর্ধিত অন্তর্ভুক্তি এবং বাজারের প্রবেশের মাধ্যমে মাটিতে সত্যিকারের পরিবর্তন আনছে,” বলেছিলেন ড. নবনীত সেহগল, আইএএস, IAS, অতিরিক্ত মুখ্য সচিব, এমএসএমই, এক্সপোর্ট প্রোমোশন, খাদি & গ্রামীণ শিল্প, উত্তর প্রদেশ সরকার। “বিশেষত এটি দেখে খুবই ভালো লাগে যে লক্ষ্ণৌ থেকে আসা একজন ব্যবসায়ী ফ্লিপকার্ট সমর্থ প্রোগ্রামের শীর্ষ বিক্রেতা হয়ে উঠেছে এত অল্প সময়ের মধ্যে। তার সাফল্যের গল্পটি ইউপি সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের অধীনে ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের সাথে অংশীদার হতে আরও অনেক লোককে অনুপ্রাণিত করবে এটি নিশ্চিত। আমরা অনলাইনে রাজ্যের ব্যবসায়ের বড় অংশ এবং অনন্য প্রোডাক্টগুলি গ্রহণের চেষ্টা করার সাথে সাথে আরও ঘনিষ্ঠভাবে ফ্লিপকার্টের সাথে অংশীদারিত্বের প্রত্যাশায় রয়েছি।”

ফ্লিপকার্ট সমর্থ কর্মসূচীর বিষয়ে আরও বেশি জানতে বা একটি অংশীদার হতে, দয়া করে এখানে ক্লিক করুন


এছাড়াও পড়ুন: ফ্লিপকার্ট সমর্থের সাহায্যে ই-কমার্সকে আলিঙ্গণ করার মাধ্যমে ভারতের চিরাচরিত কারীগররা একটি উজ্জ্বল ভবিষ্যতকে স্বাগত জানায়

Enjoy shopping on Flipkart

About the Author

Jishnu Murali
Jishnu Murali

জিশনু মুরালি ফ্লিপকার্ট স্টোরিজ সহ একজন লেখক। তিনি খাবার, ইতিহাস এবং traditionতিহ্যের মাধ্যমে বিভিন্ন সংস্কৃতি অনুভব করতে পছন্দ করেন। সংগীত এবং গা dark় কৌতুক তাকে বাঁচিয়ে রাখে।